সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

বাগানের ছত্রাকজনিত রোগের প্রাদূর্ভাব কমানোর উপায়

দেশের অনেক স্থানের বাগানকারী বা উদ্যানপালকদের নিকট ছত্রাকজনিত রোগ এক বড় সমস্যা। সাধারণত চারাগাছ একস্থান থেকে অন্যত্র রোপনের সময় ছত্রাকের আক্রমণ বেশি হয়। ছত্রাকের আক্রমণে চারাগাছ ও গাছ মারাও যেতে পারে!

বাগানকে ছত্রাকমুক্ত রাখাই হচ্ছে রোগমুক্ত বাগানের উত্তম উপায়। তাই এখানে ছত্রাকমুক্ত বাগান করার কিছু ধারণা দেয়া হল:

উঁচু বেড বা বিছানা পদ্ধতিতে চাষ: উঁচু বিছানা পদ্ধতিতে বাগান করলে ছত্রাক সম্পর্কিত দুটি সুবিধা পাওয়া যায়।

  • পানি নিষ্কাষন ব্যবস্থা ভাল থাকে। গাছের মূল বা তলায় দীর্ঘক্ষণ পানি জমে থাকতে পারে না। তাই ছত্রাক জন্মায় না।
  • ভূমি থেকে উঁচুতে হওয়ায় বায়ু চলাচলের সুবিধা থাকে। ফলে ছত্রাকের স্পোর জন্ম ব্যহত হয়।

সঠিকভাবে পানি সেচন: ব্রডকাস্ট (স্প্রিংলার বা বৃষ্টির মত ছিটানো) পদ্ধতিতে পানি না দিয়ে ভূমির কাছে ফোঁটায় ফোঁটায় পানি দেয়ার বা পানি শুষে নেয়ার ব্যবস্থা করা। এতে মাটির অভ্যন্তরে পানি যাবে। তাই বাতাসের আর্দ্রতা কম থাকায় ছত্রাক জন্মাতে পারবে না। সন্ধ্যা অপেক্ষা সকালে পানি দেয়ার উত্তম সময়।

জৈব সার ব্যবহার: কম্পোস্ট বা জৈব সার মাটিতে প্রচুর পুষ্টি যোগ করে। জৈবপদার্থ যোগ করায় তা পানি জমতে দেয় না। ফলে ছত্রাক জন্ম বাধাগ্রস্থ হয়।

চারা নির্বাচন: অধিকাংশ বাগানের চারা ও গাছের বৈচিত্রতা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন। সেগুলো ছত্রাক প্রতিরোধীও বটে। অনেক প্রজাতির তুলসী ও গোলাপ ছত্রাক প্রতিরোধ করতে সক্ষম। পরিবেশ, আবহাওয়া ও জলবায়ু বিবেচনায় সঠিক প্রজাতি ও বৈচিত্রের চারাগাছ নির্বাচন করতে হবে।

মাল্চ: প্রয়োজনবোধে গাছের গোড়ায় মাল্চ (Mulch) দিতে হবে। মাল্চ ব্যবহার করলে ছত্রাকের প্রদূর্ভাব কম হয়।

জৈব ছত্রাকনাশক: অনেক প্রকার জৈব ছত্রাকনাশক পাওয়া যায়। সেগুলো ব্যবহার করেও ছত্রাক প্রতিরোধ করা যায়। তাছাড়া পানিতে বেকিং সোডা মিশিয়ে পাতা ও ডালপালায় ছিটিয়ে দিলে ছত্রাকের আক্রমণ হয় না।

ট্রান্সপ্লান্ট করা: চারা একস্থান থেকে অন্যস্থানে রোপণ বা ট্রান্সপ্লান্ট করার সময় যথেষ্ঠ সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। কারণ এসময় সহজেই ছত্রাক ও অন্যান্য রোগ আক্রমণ করতে পারে। স্যাঁতস্যাঁতে জমি পরিহার করতে হবে।

সখের বশত হোক কিংবা অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য হোক সুন্দর ও লাভজনক বাগান মানেই হচ্ছে রোগমুক্ত বাগান। তাই বাগান করার পূর্বে রোগমুক্ত বাগানের ধারণা নেয়া জরুরি।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।