সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

Easy-Way-to-Fat-Reducing.jpg

স্বাস্থ্যতথ্য জেনে নিন পেটের চর্বি কমানোর কিছু ঘরোয়া উপায়

সহজ এই উপায়গুলো নিয়মিত মেনে চলুন। দেখবেন খুব দ্রুতই আপনার পেটের চর্বি দূর হয়ে গেছে।

পেটের চর্বি কমানো খুবই কঠিন। কারণ শরীরের অন্যান্য অংশের থেকে পেটে দ্রুত চর্বি জমে। আবার ভাঙ্গার ক্ষেত্রে তুলনামূলকভাবে পরে ভাঙ্গে। পেটে চর্বি জমা বিরক্তিকর ও খারাপ দেখায়। তবে কিছু কিছু উপায় অবলম্বন করে আপনি দ্রুত পেটের চর্বি কমাতে পারবেন।

চলুন জানা যাক পেটের চর্বি কমানোর উপায়গুলো:

  • লেবুর শরবত: আপনি যদি পেটের চর্বি বা মেদ কমাতে চান তবে দিনের শুরুটা করবেন লেবুর শরবত দিয়ে। পেটের চর্বি কমাতে এটি একটি উত্তম চিকিৎসা। লেবুর রস গরম পানিতে মিশিয়ে সামান্য লবণ যোগ করে প্রত্যহ সকালে খেলে বিপাকক্রিয়া ভাল হয় এবং পেটের মেদ বা চর্বি কমে যায়।
  • সাদা চালের ভাত পরিহার: এই ভাত ত্যাগ করে গমের পণ্যের উপর নির্ভর করুন। বাদামী চাল, বাদামী রুটি, গমের ভাত, ওট ইত্যাদি খান।
  • চিনিযুক্ত খাবার পরিত্যাগ: চিনিযুক্ত খাবার, মিষ্টি, মিষ্টি পানীয় বা কোমল পানীয়, তৈলসমৃদ্ধ খাবার ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। এসব খাবার শরীরের বিভিন্ন স্থান বিশেষত: তলপেট ও উরুতে চর্বি জমায়।
  • প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন: নিয়মিত ব্যবধানে সারাদিন প্রচুর পরিমাণে পরিষ্কার পানি পান করবেন। এতে বিপাকক্রিয়া উন্নত হয়, শরীর থেকে টক্সিন বের হয়ে যায়।
  • কাঁচা রসুন চিবান: প্রত্যহ সকালে ২-৩ কোয়া রসুন চিবিয়ে খাবেন। তারপর এক গ্লাস লেবুর শরবত পান করে নিবেন। এটি আপনার ওজন কমানোর প্রক্রিয়াকে দ্বিগুণ করে দিবে!
  • নন-ভেজ খাবার পরিহার করুন: পেটের চর্বি কমাতে যতদূর সম্ভব নন-ভেজ বা আমিষ জাতীয় খাবার পরিহার করতে হবে।
  • ফলমূল ও শাকসবজি খান: সকাল ও সন্ধ্যা প্রচুর ফলমূল খাবেন। এতে এন্টি-অক্সিডেন্ট, মিনারেল এবং ভিটামিন পাবেন।
  • খাবারে মশলা ব্যবহার: পেটের চর্বি কমাতে চাইলে খাবারে মশলা ব্যবহার করবেন। রান্নায় দারুচিনি, আদা এবং গোলমরিচ ব্যবহার করুন। এগুলোর অনেক স্বাস্থ্যগত উপকারিতা রয়েছে। এরা রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ ও চিনির পরিমাণ কমাতে সহায়ক।

তাহলে আজ থেকেই শুরু হোক উপায়গুলো মেনে চলা। নিয়মিত অবলম্বন করুন। দেখবেন খুব দ্রুতই আপনার পেটের চর্বি দূর হয়ে গেছে।

তথ্যসূত্র: আইডিয়া ডাইডেজ্‌স্ট ডট কম।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।