সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

shepherd.jpg

শিশুতোষ গল্প রাখাল ও তার ভেড়ারা

যারা উপকারীর উপকার স্বীকার করেনা তারা কখনো ভাল মানুষ নয়।

একবার ইউরোপের কোন এক দেশে এক রাখাল তার মেষগুলিকে চারণভূমিতে চরাতে চরাতে বিরাট এক ওক গাছের নিচে এসে হাজির হল। তখন ছিল শরৎকাল। এসময়ে ওক ফল পাকে। গাছটি ছিল ফলে ফলে ভরা। রাখাল তার গায়ের চাদরটি গাছের নিচে বিছিয়ে গাছে উঠল ওক ফল পাড়ার জন্য। রাখাল গাছে ছড়ে ডাল ঝাঁকিয়ে ঝাঁকিয়ে ফলগুলো নিচে চাদরের উপর ফেলতে লাগল। মেষগুলো চাদর থেকে ফল গুলো খেতে লাগল। দুষ্ট মেষগুলো চাদর থেকে শুধু ফলগুলিই খাচ্ছিল না সাথে সাথে রাখালের চাদরটিকেও ছিড়ে চিবিয়ে নষ্ট করতে লাগল।

রাখাল গাছ থেকে নেমে তার প্রিয় চাদরের এ অবস্থা দেখে অত্যন্ত ব্যাথিত হল । সে আর্তনাদ করে তার মেষগুলোকে বলল,“হতচ্ছাড়া অবিশ্বাসী  জানোয়ারের দল, দুনিয়ার লোকের উলের যোগান দিস তোরা, আর যে তোদের খাবার যোগান দেয় তার গায়ের চাদরটাই কুচি কুচি করে রাখলি!”
রাখাল মেজাজ খারাপ করে একবার ভাবল মেষগুলোকে একটা উপযুক্ত শিক্ষা দেয়। কিন্তু পরে সে এ চিন্তা বাদ দিল। কারণ অবোধ পশুকে গালিগালাজ করে কিংবা শাস্তি দিয়ে কোন লাভ নেই। তাই সে তার মেষগুলিকে নিয়ে বাড়ির দিকে চলে গেল। 

বলতে পার  এ গল্পের শিক্ষা কী ?

এ গল্পের শিক্ষা হল-
                          উপকারীর অকৃতজ্ঞতা কিংবা ক্ষতি করার চেয়ে বড় হীন কাজ আর কিছুই নেই। এমনটা  শুধু অবোধ পশুকেই মানায়। মানুষ কখনো এমন করতে পারেনা।  

ঈশপের গল্প অবলম্বনে

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।