সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

কেমন হবে আদর্শ রান্নাঘর

রান্নাঘর হওয়া চাই আরামদায়ক সুবিন্যস্ত রান্নাঘর একটি বাড়ির সবচেয়ে ব্যবহারিক স্থান। যে স্থান নিজের মধ্যে চায় সঠিক স্টোরেজ, কাজের খোলামেলা পরিবেশ, বসার জায়গা আর মুক্ত প্যাসেজ।

ফয়জুন্নেসা মণি

আমাদের ঘরের সব করে যেমন আলাদা কদর আছে তেমনি আছে পছন্দের ভিন্নতা। কেউ হয়তো পড়ার ঘরকে ভালোবাসেন বেশি, আবার কারো বা ড্রইংরুমকে ঘিরে থাকে ভালোলাগা আবেশ। তবে নির্দ্বিধায় এটা বলা যায় ঘরের আবহে রান্নাঘরই সেই জায়গা, যেখানে সবার ভালোলাগা মিশে থাকে অপারভাবে। ভালো লাগে স্বাদের ছোঁয়া, পারিবারিক মধুর স্মৃতির স্পর্শ, আনন্দের আতিশয্য, দৈনিক অভ্যাসের তালিকা- সবই যেন কোনো না কোনোভাবে রান্নাঘরের সাথে জড়িত। 

রান্নাঘর একটি বাড়ির সবচেয়ে ব্যবহারিক স্থান। যে স্থান নিজের মধ্যে চায় সঠিক স্টোরেজ, কাজের খোলামেলা পরিবেশ, বসার জায়গা আর মুক্ত প্যাসেজ।

আদর্শ রান্নাঘর হওয়া চাই বাস্তব, অভিজাত, আরামদায়ক এবং সর্বোপরি সুবিন্যস্ত।

রান্নাঘরের ডিজাইনে রাঁধূনীর সাথে সাথে সমান গুরুত্ব দেয়া উচিত বাড়ির অন্য সদস্যদের রুচির প্রতিও।

রান্নাঘরের নকশায় রাঁধূীনর রান্নার স্টাইল সবচেয়ে গুরুত্ব পেতে হবে।

রান্নার নিজস্ব স্টাইলের ওপরই গুরুত্ব দিতে হবে জিনিসপত্র, তৈজস, রান্নার উপাদান, মাধ্যম, ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য এবং রান্না করার জায়গা বিশেষের প্রতি।

এ ধরনের নকশা অনুযায়ী রান্নাঘরের গুরুত্বপূর্ণ তিনটি উপাদান- সিল্ক, রেফ্রিজারেটর, রান্নার চুলার উচ্চতা সঠিকভাবে নিরূপণ করা উচিত। যেন তা ব্যবহারকারীর ব্যবহারে সজহ হয়।

রান্নার জায়গা, রেফ্রিজারেটর এবং পরিষ্কার করার জায়গার মধ্যে অন্তত ৬ মিটার দূরত্বে থাকতে হবে।

রান্নাঘরের মেঝে সাধারণত মোজাইক, সিরামিক, টাইলস অথবা মার্বেলের হয়ে থাকে।

বাংলাদেশের জন্য সাধারণত স্টোনিং মেঝে অথবা সিরামিকের হওয়া উচিত। তবে এসব ম্যাটেরিয়াল মোটিফ এমন হওয়া বাঞ্চনীয় যেন তা স্ক্র্যাচ প্রতিরোধক হয়।

সাধারণত সব রান্নাঘরই রঙ করা হয়। তবে খেয়াল রাখা জরুরি সিল্কের নিচে এবং আশেপাশে প্লাস্টিক পেইন্ট বা টাইলস থাকা উচিত।

কেবিনেটের ভেতরে অন্তত ১৯ মিলিমিটার ব্লক থাকা উচিত এবং তা লেমিনেটেড বা এনামেল পেইন্টেড হতে হলে ভালো।



এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।