সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

Avoid-Fruits-During-Pregnancy.jpg

সুস্থ থাকুন জেনে নিন গর্ভাবস্থায় যে ফলগুলো বর্জন করতে হবে

আমরা সবাই এটা জানি যে ফল যেকোনো সময়ের জন্যই ভালো। কিন্তু কিছু ফল আছে যেগুলো গর্ভাবস্থায় অবশ্যই বর্জন করতে হবে।

গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী নারীদের খাবারের ব্যাপারে সব সময় প্রয়োজন বাড়তি সচেতনতার। কারন এই সময়েই নারীদের বেশি মানুষের উপদেশ শুনতে হয় কি খাওয়া যাবে আর কি খাওয়া যাবে না। আমরা সবাই এটা জানি যে ফল যেকোনো সময়ের জন্যই ভালো। কিন্তু কিছু ফল আছে যেগুলো গর্ভাবস্থায় অবশ্যই বর্জন করতে হবে।

যে ফলগুলো গর্ভাবস্থায় বর্জন করতে হবে সেগুলো সম্পর্কে একটু জেনে নেই:

কাঁচা পেঁপে:
গর্ভবতী নারীদের অবশ্যই কাঁচা পেঁপে খাওয়া বর্জন করতে হবে কারন এটি খাওয়ার কারনে অকাল গর্ভপাত বা অকাল প্রসব বেদনা হতে পারে। কাঁচা বা আধা পাকা পেঁপেতে থাকে লেটেক্স নামক উপাদান যা জরায়ু সংকোচন ঘটাতে পারে।

তবে গর্ভাবস্থায় পাকা পেঁপে খাওয়া ভালো। কারন এতে ভিটামিন সি ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান থাকে যা এই সময়ের বিভিন্ন সমস্যা যেমন বুক জ্বলা, কোষ্ঠ্যকাঠিণ্য ইত্যাদি দূর করতে পারে। দুধের সাথে পাকা পেঁপে এবং মধু মিশিয়ে খেলে তা স্তন্যদানকারী নারীদের শক্তিদায়ক ঔষধের মত কাজ করে। তবে নিরাপদ থাকার জন্য গর্ভাবস্থায় যেকোনো পেঁপে না খাওয়াই ভালো।

কালো আঙ্গুর:
বিশেষজ্ঞরা সাধারণত গর্ভবতী নারীদের কালো আঙ্গুরের মত ফলগুলো খেতে মানা করে থাকেন বিশেষ করে গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাসে। কারন এটি দেহে তাপ উৎপাদন করে যা ওই সময়ে গর্ভস্থ শিশুর জন্য খুব ক্ষতিকর।

আনারস:
গর্ভাবস্থায় আরো একটি ফল বর্জন করা খুবই জরুরী সেটা হলো আনারস। কারন আনারসে থাকে ব্রোমেলেইন নামক একটি উপাদান যা গর্ভাশয়ের সংকীর্ণ অংশকে নমনীয় করে অকাল প্রসবের সম্ভাবনা বাড়ায়। গর্ভাবস্থায় হয়তো ১/২ টুকরো খেতে পারে কিন্তু অবশ্যই প্রথম ৩ মাসে নয়। তবে গর্ভাবস্থায় আনারস না খাওয়াই উত্তম।

গর্ভাবস্থায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ভালো ভাবে পরিষ্কার ও বিশুদ্ধ পানিতে ধোয়া ছাড়া ফল ও সবজি কোনো ক্রমেই যেন না খাওয়া হয়। আর সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে অস্বাস্থ্যকর ও আধা রান্না করা খাবার কোনো ক্রমেই খাওয়া যাবে না। যা গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী নারীদের টোক্সমোপ্লাজমোসিস এর কারনে সৃস্ট রোগের হাত থেকে রক্ষা করবে। কারন খাবারের ব্যাপারে সতর্ক থাকলে তা সুস্থ বাচ্চা পেতে এবং নিরাপদ প্রসবের জন্য সাহায্য করবে।

তাই গর্ভাবস্থায় ভালো থাকার জন্য অবশ্যই এইসব ফলগুলো বর্জন করা বাঞ্ছনীয়।

 -
লেখক: জনস্বাস্থ্য পুষ্টিবিদ, এক্স ডায়েটিশিয়ান, পারসোনা হেল্‌থ, খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান (স্নাতকোত্তর) (এমপিএইচ), নিউট্রিশন এবং ডায়েট থেরাপিতে বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।