সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

excercise-rules-.jpg

জেনে রাখুন ব্যায়াম এর পরে ভুলে যে ভুলগুলো আমরা করে থাকি

অনেকের ক্ষেত্রে যেটা হয় আঁটসাঁট পোশাক পরাতে ব্যায়াম পরবর্তী সময়ে অনেকের মনে হয় গায়ে দিয়ে যেন পিঁপড়া হাটছে। তাই একটু অস্বস্তিতে থাকেন অনেকে। এজন্য ব্যায়ামের সময় যতটা সম্ভব আরামদায়ক পোশাক পরবেন।

সুস্থ থাকার জন্য হোক কিংবা ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য হোক, ব্যায়াম করা আমাদের অনেকেরই দৈনন্দিন রুটিনের অংশ। যদি জানতে চাই, ব্যায়ামের পরবর্তী সময় আপনি কি করেন তবে উত্তর কি হবে? বাসায় গিয়ে একটু সোফায় বসি, কিছুক্ষন বিশ্রাম নেই। কিংবা সকালে ব্যায়াম করলে তারপর গোসল করে দৈনন্দিন কাজ শুরু করি।

সাধারণত আমরা এ কাজগুলোই করে থাকি। অথচ আমরা জানিই না যে ব্যায়াম পরবর্তী সময়ে আমরা ভুল করেই বেশ কিছু ভুল করে ফেলি। আপনিও যদি এ ভুলগুলো সম্পর্কে না জানেন তবে এই ফিচারটি আপনার জন্যই।

ব্যায়াম পরবর্তী সময়ে ভুল খাদ্য গ্রহন:
ব্যায়াম করা শেষে আমরা বেশিরভাগ মানুষই ভুল খাবার খেয়ে থাকি। বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়ে থাকেন ব্যায়াম পরবর্তী সময়ে কার্বোহাইড্রেট ও প্রোটিনযুক্ত পরিমিত খাবার গ্রহন করতে। আপনার ভুল খাদ্য গ্রহনের কারনে হেটে বা জিমে ব্যায়াম করে ক্ষয় করা ক্যালরি কিন্তু আবার দেহে পুনরায় সঞ্চয় হয়ে যেতে পারে!

যদি আপনার মূল লক্ষ্য হয়ে থাকে ওজন কমানো তবে এ ব্যাপারে আপনাকে বেশ সচেতন হতে হবে। ব্যায়াম পুর্ববর্তী সময়ে কি খাবার খেয়েছেন তার সাথে সামঞ্জস্য রেখে পরবর্তীতে খাবার গ্রহন করুন। সবচেয়ে ভালো হয় আপনি যদি পুরোদিনের খাবারের ক্যালরীসহ একটি তালিকা করে রাখেন এবং সেই অনুযায়ী খাদ্য গ্রহন করে থাকেন। মনে রাখবেন, ব্যায়াম পরবর্তী সময় অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহন আপনার উপকারের চেয়ে অপকারই বেশি করবে।

ব্যায়াম শেষে মাংসপেশির প্রসারণ না করা:
জিমের কঠিন ব্যায়াম কিংবা হাটা শেষেই কিন্তু ব্যায়ামের শেষ হয়না। আমরা বেশিরভাগ সময়ে ব্যায়াম শেষেই বসে পড়ি এবং ঘাম ঝরাতে থাকি। তবে সবকিছুর একটা নিয়ম তো আছেই। ঠিক তেমনি ব্যায়াম পরবর্তী সময়েও করার জন্য কিছু ব্যায়াম রয়েছে। সেগুলো হল আপনার মাংসপেশি প্রসারণের ব্যায়াম। ধীরে ধীরে সহজ এই ব্যায়ামগুলো করে ফেলবেন অবশ্যই।

এ ব্যায়ামগুলো আমাদের মাংসপেশি উষ্ণ করবে যার ফলে মাংসপেশির নমনীয়তা বৃদ্ধি পাবে। আপনি যদি ওজন কমাতে ব্যায়াম করে থাকেন তবে এ ব্যায়ামগুলো আপনার স্ট্রেস দূর করতে এবং সুন্দর ঘুমের সহায়ক হবে।

বিশেষজ্ঞরা বলে থাকেন, ব্যায়ামের শেষ পর্যায়ে ১০-১৫ মিনিট ছোট খাটো এসব ব্যায়াম আপনার হাড়, মাংসপেশী এবং হৃদপিণ্ডকে সচল রাখতে সাহায্য করে। মূল কথা, দেহের কর্মদক্ষতা বৃদ্ধির জন্য অত্যান্ত প্রয়োজনীয় এই ব্যায়ামগুলোকেই আমরা বেশিরভাগ সময় আলসেমি করে বাদ দিয়ে দেই।

ব্যায়াম শেষেই বিশ্রাম নেয়া:
ব্যায়াম শেষ। ব্যাস, বসে পড়লাম চেয়ার কিংবা সোফায়। কিংবা, শুয়েই পড়লাম বিছানায়। এটাই করে থাকি আমরা বেশরভাগ মানুষ। আপনিও কি এমন করছেন? তবে জেনে রাখুন বেশ বড় ভুল করছেন আপনি। আপনার মাংসপেশির পুনর্গঠনের জন্য ব্যায়ামের পর বিশ্রামের অবশ্যই প্রয়োজন আছে তবে সেই বিশ্রামটা আপনাকে নিতে হবে সতেজ থেকে। একটু হাটাহাটি করলেন কিংবা ঘরের টুকটাক কাজ করলেন। এটি আপনার হাড়কে সতেজ রাখবে আর ক্যালরীও পুড়াবে।

অনেকের ক্ষেত্রে যেটা হয় আঁটসাঁট পোশাক পরাতে ব্যায়াম পরবর্তী সময়ে অনেকের মনে হয় গায়ে দিয়ে যেন পিঁপড়া হাটছে। তাই একটু অস্বস্তিতে থাকেন অনেকে। এজন্য ব্যায়ামের সময় যতটা সম্ভব আরামদায়ক পোশাক পরবেন।

ব্যায়ামের অনুভূতি লিখে ফেলুন কাগজে:
বিশ্বাস করুন আর না করুন, ব্যায়াম শেষে আপনার অনুভূতি লেখা, আপনার পরবর্তী দিনগুলোর সহায়ক হিসেবে কাজ করবে। তাই ব্যায়াম শেষে কয়েক মিনিট সময় নিয়ে নোট করে ফেলুন কি কি করলেন। লেখাতে রাখবেন এই তথ্যগুলোঃ

  • কি ব্যায়াম করলেন? (সময়কাল। ব্যায়ামের ধরন)
  • ব্যায়াম শুরু করার সময় কেমন লাগছিলো?
  • ব্যায়াম করার সময় কেমন অনুভূতি হয়েছিলো? ( ভালো নাকি অস্বস্তি? )
  • ব্যায়াম করার পর এখন আপনার কেমন লাগছে?
  • আপনার যে কোন মনে কথা। হতে পারে আপনার মনসিক অবস্থা, সম্পর্ক বা পারিবারিক কোন কথা।

আপনি যদি জিমে বা অন্য কোথাও ব্যায়াম করে থাকেন তবে আপনার পকেট বা ব্যাগে নোট খাতা আর কলম রাখুন যেন ব্যায়াম শেষেই অনুভুতির কথাগুলো ঝটপট লিখে ফেলতে পারেন।

সুস্থ দেহে সুন্দর মনের বাস। আর দেহ সুস্থ রাখতে ব্যায়াম আবশ্যক। ব্যায়ামের পরর্বতী কিছু ছোটখাটো ব্যাপার খেয়াল রাখুন আর নিজেকে সতেজ রাখুন সবসময়। শুভ হোক আমাদের সুস্থ থাকার প্রচেষ্টা। 
এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।